ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
ব্রেকিং নিউজ

নিউজ ডেস্ক

৩১ অক্টোবর ২০২১, ১২:১০

৫টি অভ্যাস শীতকালে আপনাকে সুস্থ রাখবে

21718_16.jpg
সংগৃহীত
দরজায় কড়া নাড়ছে শীত। হেমন্তের শেষ বিকেলে উত্তরের ঠান্ডা হাওয়া দিচ্ছে শীতের আগমন বার্তা। এ সময় অনেকেই সর্দি, জ্বর, কাশি সহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েন। এই ধরণের অসুস্থতা থেকে মুক্তি পেতে শীতের আগে থেকেই কিছু অভ্যাসে নিজেকে অভ্যস্ত করলে শীতকালে সুস্থ থাকা সম্ভব। চলুন জেনে নেয়া যাক সে অভ্যাসগুলো কী কী।

ফল ও সবজি

শীত মানেই নুতন নতুন সবজির সম্ভার। মৌসুমী এই সবজিগুলো শরীরকে সুস্থ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তবে সবজি শুধু নয়, শীতের ফলও দারুণভাবে শরীরকে ফিট রাখতে সহযোগিতা করে। এক্ষেত্রে বলা যেতে পারে, কমলালেবুর কথা। কমলালেবুতে আছে ভিটামিন সি, যা শীতে ঠাণ্ডা লাগা থেকে শরীরকে রক্ষা করে। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায় সুস্বাদু কমলালেবু।

তাই শীতের মৌসুমে প্রতিদিন একটা করে কমলালেবু খাওয়ার অভ্যাস করতে পারেন। এতে চিকিৎসকরে কাছ থেকে দূরে থাকতে পারবেন। এছাড়াও শীতে প্রতিদিনের খাবার তালিকায় ভিটামিন ডি রাখার চেষ্টা করুন। তাই শীতে শরীরকে সুস্থ থাকতে মৌসুমী ফল-শাকসবজি খাওয়ার পাশপাশি ডিম, মাছ-মাংসও খাবেন। শীতে হজমের সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা কম। তাই খেতে দ্বিধা করবেন না।

সুস্থ রাখবে ঘুম

শীতকালে ঘুমাতে কমবেশি সবাই পছন্দ করেন। সবসময় মনে রাখতে হবে, স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের পর পর্যাপ্ত ঘুম খুব দরকার। কারণ খাবার খাওয়ার পর ঠিকমতো বিশ্রাম না হলে, সেই খাবার হজম হবে না। সুস্থ থাকতে প্রতিদিন ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা ঘুমের দরকার। আর শীতের ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় এমনিতেই ঘুমের কোন সমস্যা হয় না। আর যাদের ঘুমের সমস্যা হয়, তারা প্রয়োজনে নিয়মিত শরীরচর্চা করতে পারেন। প্রতিদিন সকালে হালকা কিছু ব্যায়াম রাতে ভালো করে ঘুমাতে সাহায্য করে।
শীতকালে মধু-দই-চা উপকারী

শীতের সময়টাতে যাদের ঠাণ্ডা লাগার সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন সকালে বা রাতে হালকা গরম পানিতে মধু মিশিয়ে পান করতে পারেন। প্রতিদিন দুপুরে খাবার পর অল্প করে দই খাওয়ার চেষ্টা করুন। দই শরীরকে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়া থেকে রক্ষা করে। এছাড়াও জ্বর, সর্দি-কাশির হাত থেকে বাঁচতে প্রতিদিন চা পান করুন। এক্ষেত্রে আদা দেওয়া চা উপকারী।

পানি পান করুন

শীতের সময়টাতে পিপাসা কম লাগে তাই অনেকেই পানি কম পান করে থাকেন। এটা একদমই ঠিক নয়। শীতেও শরীরে পানির প্রয়োজন হয়। তাই যতটা সম্ভব শীতে পানি পান করুন। শীতে স্কিন শুকিয়ে যায়। পানি বেশি করে পান করলে স্কিন ভেতর থেকে হাইড্রেড থাকবে। আর শীতে চারিদিকেই এমনিতেও শুকনো আবহাওয়া থাকে। যদি পানি পান না করা হয়, তাহলে শরীর শুকিয়ে যাবে। এতে অসুস্থ হয়ে পড়াটা অস্বাভাবিক নয়। প্রতিদিন ৩ থেকে ৪ লিটার পানি পান করবেন। স্কিনকে হাইড্রেড রাখুন। স্কিনকে ভালো রাখতে দিনে অন্তত দুইবার ময়েশ্চারাইজার লাগাতে চেষ্টা করবেন।

হাত পরিষ্কার রাখতে হবে

শীত এলেই অনেকের সর্দি-কাশির সমস্যা হয়। তাই সবসময় পরিষ্কার হাতে খাবেন। এটা বলার কারণ হলো, শীতকালে পানি হাতে লাগলে ঠাণ্ডা অনুভূত হয়, এজন্য অনেকেই পানিতে বারবার হাত ধুতে চান না। প্রয়োজনে ব্যবহার করুণ হ্যান্ড সানিটাইজার। করোনাকালে হ্যান্ড সানিটাইজারে সবাই ইতিমধ্যে অভ্যস্ত। এটা সবসময় সঙ্গে রাখুন। কারণ হাত থেকেই কিন্তু রোগ ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র।

তাহলে শীতে নিজেকে ভালো রাখতে এই টিপসগুলো মেনে চলার চেষ্টা করুন। শীতে বেশি করে মশলা দেওয়া খাবার খাবেন। আদা, রসুন, গোলমরিচ, জিরা দেওয়া খাবার খাবেন। বদহজম হবার সম্ভবনা যেমন নেই তেমনি উপকারও পাবেন। এছাড়াও নিজেকে সুস্থ ও সুন্দর রাখতে আরেকটা খুব দরকারি বিষয় হলো, নিজেকে স্ট্রেস ফ্রি রাখা। ভুলে যাবেন না, অতিরিক্ত স্ট্রেস থেকে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। শুধু শরীর নয়, মনকেও সুস্থ রাখতে হবে। কারণ ভগ্ন মন, শরীরে প্রভাব ফেলে।