ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
ব্রেকিং নিউজ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

১০ নভেম্বর ২০২১, ১৩:১১

শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠায় রাসূলের সা. শ্রমনীতির বিকল্প নেই : অধ্যাপক মুজিবুর

21997_51121.JPG
বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের উদ্যোগে “রাসূল (সা.) ঘোষিত শ্রমনীতিতে শ্রমিকের অধিকার” শীর্ষক জাতীয় সিরাত সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার ভার্চুয়ালি সংগঠনটির এই সেমিনারটি অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধান অতিথির বক্তবে সংগঠনটির সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমান বলেছেন, শ্রমিকরা আমাদের সমাজে প্রতিটি স্তরে অবহেলিত। তাদের প্রাপ্য তারা অধিকার বঞ্চিত। শ্রমিকদের ওপর ইনসাফ কায়েম করা হচ্ছে না। রাসূল (সা.) সহ আল্লাহ প্রেরিত অধিকাংশ নবী রাসূলগণ শ্রমজীবী ছিলেন। তারা শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করে গেছেন। রাসূল (সা.) ছিলেন শ্রমজীবীদের কাছের মানুষ। তিনি শ্রমজীবী মানুষদের খুব ভালোবাসতেন। রাসূল (সা.) ঘোষণা দিয়েছেন, শ্রমিকরা আল্লাহর বন্ধু। আল্লাহর রাসূল (সা.) শ্রমিকের অধিকার কায়েম ও তাদের প্রতি ন্যায়নীতি প্রতিষ্ঠা করতে নির্দেশ দিয়েছেন। বর্তমান সময়ের দুর্ভাগ্য শ্রমিক গরিব মেহনতি মানুষরা সবদিক থেকে অধিকার বঞ্চিত। অথচ আমাদের কাছে শ্রমিকের অধিকার প্রতিতষ্ঠার জন্য অনুপম আদর্শ রয়েছে। তাই আজ এই কথা অনস্বীকার্য শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে রাসূল (সা.) এর শ্রমনীতি বাস্তবায়নের বিকল্প নেই।

ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সভাপতি অধ্যাপক হারুনুর রশিদ খানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আতিকুর রহমানের সঞ্চালনায় সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও ইসলামী শ্রমনীতি গবেষক ড. জি এম শফিকুল ইসলাম। বিশেষ আলোচক ছিলেন বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার ও তালিমুল কুরআন ফাউন্ডেশনের সেক্রেটারী মাওলানা আব্দুল হালিম, বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার ও কুরআন শিক্ষা সোসাইটির সভাপতি মাওলানা আব্দুস শহীদ নাসিম, ইসলামী চিন্তাবিদ, গবেষক ও সংগঠক ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ, সাপ্তাহিক সোনার বাংলার সহকারী সম্পাদক ড. রেজাউল করিম, বিশিষ্ট লেখক, গবেষক ও ব্যাংকার ড. নুরুল ইসলাম, ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি গোলাম রব্বানী। এ সময় মূল মঞ্চে আরো উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সহ-সভাপতি লস্কর মোঃ তসলিম, সহ-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আলমগীর হোসাইন, আব্দুস সালাম, মহিব্বুল্লাহ, দপ্তর সম্পাদক নুরুল আমিন, প্রচার সম্পাদক জামিল মাহমুদ প্রমুখ।

অধ্যাপক মুজিবুর রহমান বলেন, হালাল জীবিকা অর্জন ফরজ কাজ। শ্রমিকরা হালাল রুজি উপার্জন করে থাকে। তারা শরীরের ঘাম পায়ে ফেলে রাষ্ট্রের অর্থনীতির চাকা সচল রাখে। একটি সমাজ রাষ্ট্রে প্রতিটি শ্রমিকের অবদান অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই। কিন্তু আজ শ্রমিকের ঘর থেকে হাহাকারের কান্না আওয়াজ বেরিয়ে আসে। আজ শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত থেকে যাচ্ছে। মাসের পর মাসের শ্রমিকের পাওনা বকেয়া থেকে যাচ্ছে। শ্রমিকের যতটুকু প্রয়োজন ততটুকু দেওয়া হচ্ছে না। ফলে এক বেলা খাওয়ার পর অন্য বেলা অনাহারে কাটাতে হয়। তাদের থাকার জন্য ভালো বাসস্থান নেই। সন্তানদের শিক্ষার কোন ব্যবস্থা করতে পারে না। তাদের ভালো পোশাক ক্রয় করতে পারে না। আজ তারা অর্থবিত্ত না থাকার দরুণ নূন্যতম সম্মানটুকু পায় না। অথচ এই রকম হওয়ার কথা ছিল না। রাসূল (সা.) শ্রমিকের ঘাম শুকানোর পূর্বে তার পাওনা পরিশোধ করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন। তিনি আরো বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, শ্রমিক ও তুমি সহোদরভ ভাইয়ের মতন। তুমি যা খাবে তাকে তাই খাওয়াবে। তুমি যা পড়বে শ্রমিককে তাই পড়াবে। শ্রমিককে এমন কোন কাজ দিবে না যা তার সাধ্যের বাহিরে। যদি দিতে হয় তবে তাকে সহযোগিতা করবে। রাসূল (সা.) শ্রমিককে দিনে সত্তরবার ক্ষমা করার নির্দেশ দিয়েছেন। আমি মালিক ভাইদের প্রতি হাদিসগুলো অনুসরণ করতে বিশেষ ভাবে আহবান জানাই।

মাওলানা আব্দুল হালিম বলেন, দ্বীনকে বিজয় করতে যুগে যুগে শ্রমিকরা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। আমাদের দেশেও দ্বীন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে শ্রমিকরা অগ্রগামী। ইনসাফ পূর্ণ রাষ্ট্র ও সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে শ্রমিকরা অতীতের ন্যায় বর্তমান সময়েও নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের এই অবদান অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই।

মাওলানা আব্দুস শহীদ নাসিম বলেন, আজ আমাদের সমাজে প্রতিটি জায়গায় অসম্মান করা হচ্ছে। তারা গরিব অভাবী হতে পারে কিন্তু আমলের দিক থেকে তারা অনেক বেশি খালেস। কাল কেয়ামতের ময়দানে আল্লাহ বান্দাহর চেহারার দিকে তাকাবেন না। সেদিন শ্রমিকরা আল্লাহর কাছে পুরস্কৃত হবেন।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক হারুনুর রশিদ খান বলেন, রাসূল (সা.) সকল যুগের সকল মানুষের কাছে একমাত্র আদর্শ। তিনি নিজে শ্রমজীবী ছিলেন। শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য ছিলেন অগ্রগামী। তাঁর দেখানো পথে রয়েছে সকল পথের সকল মতের শ্রমিকের মুক্তি। তাই অধিকার বঞ্চিত শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে রাসূল (সা.) এর শ্রমনীতি অনুসরণ করা ছাড়া আর কোন পথ আমাদের সামনে নেই। তাই আজ শ্রমজীবী মানুষদের মুক্তির জন্য দেশের সকল শ্রমিকদের রাসূল (সা.) দেখানো আদর্শিক পথে নিয়ে আসতে হবে। তাদের ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। শ্রমিকরা আদর্শিক পথে ঐক্যবদ্ধ করা গেলে শ্রমিকের মুক্তি নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।